1. Don.35gp@gmail.com : Editor Washington : Editor Washington
  2. masudsangbad@gmail.com : Dewan Arshad Ali Bejoy : Dewan Arshad Ali Bejoy
  3. almasumkhan4@gmail.com : Md Al Masum Khan : Md Al Masum Khan
  4. jmitsolution24@gmail.com : Nargis Parvin : Nargis Parvin
  5. rafiqulmamun@yahoo.com : Rafiqul Mamun : Rafiqul Mamun
  6. rakibbhola2018@gmail.com : Rakib Hossain : Rakib Hossain
  7. rajoirnews@gmail.com : Subir Kashmir Pereira : Subir Kashmir Pereira
  8. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
  9. rafiqulislamakash@yahoo.it : Rafiqul Islam : Rafiqul Islam
  10. sheikhjuned1982@gmail.com : Sheikh Juned : Sheikh Juned
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জনগনের ভোট ও ভোটার উপস্থিতি নিয়ে এমডি আল মাসুম খানের বিশ্লেষণ - Washington Sangbad || washington shangbad || Online News portal
সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ১২:২৪ পূর্বাহ্ন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জনগনের ভোট ও ভোটার উপস্থিতি নিয়ে এমডি আল মাসুম খানের বিশ্লেষণ

  • প্রকাশিত : বুধবার, ৩ আগস্ট, ২০২২
  • ৫৬ জন সংবাদটি পড়েছেন।

এমডি আল মাসুম খান : ৩ আগস্ট, ২০২২, বুধবার।মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১০ লক্ষাধিক বাংলাদেশির মধ্যে ভোটারের যোগ্য ৬ লাখ ১৭ হাজার ভোটার।

সর্বশেষ বিশ্লেষণ অনুযায়ী ২০ অক্টোবর ২০২০ এর জরিপ অনুযায়ী।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি হিসাব অনুযায়ী ২০২০ সাল পর্যন্ত ভোটার হবার যোগ্যতা অর্জনকারী বাংলাদেশি-আমেরিকানের সংখ্যা ৬ লাখ ১৭ হাজার ২৪৩ জন। বাংলাদেশী আমেরিকান ভোটারদের বড় একটি অংশের বসবাস নিউইয়র্ক, ক্যালিফোর্নিয়া, মিশিগান, নিউজার্সি, ফ্লোরিডা, জর্জিয়া এবং পেনসিলভেনিয়া স্টেটে। তবে ২০২০ সালের আগে (মিশিগানে এক টার্মের জন্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত হ্যানসেন ক্লার্ক ছাড়া) কোনো বাংলাদেশি কংগ্রেসে জয়ী হতে পারেননি। নিউইয়র্কের মতো বড় একটি সিটির কাউন্সিলম্যান হবার গৌরবও অর্জন করতে পারেননি কেউই। এর অন্তরায় হিসেবে বলা হচ্ছে অনৈক্যকে (বাংলাদেশের মধ্যে একতার অভাব)
ঐক্যবদ্ধ শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হলেই নিউইয়র্ক সিটির কাউন্সিলম্যানই শুধু নয়, স্টেট সিনেট কিংবা কংগ্রেসের একাধিক আসন দখলে নেওয়া সম্ভব বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।
প্রসঙ্গত বলা যেতে পারে, জর্জিয়া স্টেটের সিনেটর হিসেবে জয়ী হয়েছেন বাংলাদেশি আমেরিকান শেখ রহমান (ডেমক্র্যাট)। উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে তার নির্বাচনী এলাকায় বাংলাদেশির সংখ্যা হাতেগোনা। তবে তিনি অন্যসব ধর্ম-বর্ণ-জাতির মানুষের প্রিয় ব্যক্তিত্বে পরিণত হওয়ায় বিজয় ছিনিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। আরেকজন রয়েছেন নিউ হ্যামশায়ার স্টেট রিপ্রেজেনটেটিভ হিসেবে। আবুল খান নামক সেই রাজনীতিক রিপাবলিকান পার্টির সঙ্গে রয়েছেন। স্টেট ডিপার্টমেন্ট, ইউএস সিআইএস, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি ডিপার্টমেন্টের তথ্য অনুযায়ী গত ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে বৈধভাবে বসবাসকারী বাংলাদেশির সংখ্যা ১০ লাখ ৪২ হাজার ৭১০ জন।
যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল প্রশাসনের তথ্য-উপাত্তের ওপর অনুসন্ধানী দৃষ্টির মধ্য দিয়ে সর্বশেষ তথ্য সংগ্রহ করি আমি এমডি আল মাসুম খান যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশিদের সংখ্যার ব্যাপারে। আমার প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী স্বাধীনতার পর থেকে ২০২০ পর্যন্ত ইমিগ্র্যান্ট ভিসায় (ডিভি লটারি, পারিবারিক কোটা, বিশেষ ক্যাটাগরি, বিনিয়োগ, আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী ভিসা ইত্যাদি) যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন ৩ লাখ ৫৮ হাজার ৪৫২ জন বাংলাদেশি। এ ছাড়া আরও ৭ লাখ ১৮ হাজার ২৬৬ জন এসেছেন ট্যুরিস্ট, ছাত্র, ব্যবসা, চিকিৎসা ইত্যাদি নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসায়। মেক্সিকো অথবা কানাডা সীমান্ত পথে আরো এসেছেন লাখ খানেক বাংলাদেশি। এর মধ্যে অনেকেই অ্যাসাইলামের পথ ধরে সিটিজেনশিপ পেয়েছেন। এ ছাড়া, নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসায় আগতদের বড় একটি অংশও পরবর্তীতে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে স্থায়ী ভাবে বসবাসের অনুমতি লাভের পথ বেয়ে সিটিজেনশিপ গ্রহণ করেছেন। এর মধ্য থেকে গত বছর পর্যন্ত সিটিজেনশিপ গ্রহণকারীর সংখ্যা হলো দুই লাখ ৬৪ হাজার ৫৯৮। অপর দিকে, সীমান্ত অতিক্রম করে আসাদের মধ্যে যারা অ্যাসাইলাম পাননি কিংবা নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসায় আসার পর যারা অবৈধ অভিবাসীর তালিকায় পরিণত হয়েছেন-তাদের সংখ্যা বাড়তে বাড়তে গত বছর পর্যন্ত ৪ লাখ ৩০ হাজার ৯৬০ এ দাঁড়িয়েছে। ফেডারেল, স্টেট, সিটি প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী এ সংখ্যা নিরূপিত হয়েছে। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকানের সংখ্যা হচ্ছে ৪ লাখ ৫২ হাজার ৬৪৫। তাদেরও বড় একটি অংশের বয়স ১৮ বছরের অধিক অর্থাৎ তারাও ভোটার হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছেন। আমি গত ২ বছর বিভিন্ন উইকিপিডিয়া, জার্নাল ও ফেডারেল গভমেন্টের তথ্য পর্যালোচনা করে এক পরিসংখ্যানে পেয়েছি ডিভি লটারি থেকে প্রচলিত রীতি অনুযায়ী বাংলাদেশ অপসারিত হলেও পারিবারিক কোটায় প্রতি বছরই যুক্তরাষ্ট্রে বিপুল সংখ্যক মানুষ আসছেন গ্রীণকার্ড নিয়ে। অনেক যুবক-যুবতি বাংলাদেশে গিয়ে পরিচিতজনকে বিয়ে করছেন। তারাও স্বল্পতম সময়ে গ্রিনকার্ড নিয়েই যুক্তরাষ্ট্রে আসছেন। অর্থাৎ বিদ্যমান রীতি বহাল থাকলে দিন-দিনই আমেরিকায় বাংলাদেশির সংখ্যা বাড়বে। আমার এক গবেষণায় আমি উপলব্ধি করেছি যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি সংখ্যাবৃদ্ধির সঙ্গে সংগতি রেখে জাতিগত ভাবে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়া জরুরি। মার্কিন প্রশাসনের অংশ হতে না পারলে সত্যিকার অর্থে আমেরিকান স্বপ্ন পূরণের ধারে-কাছেও যাওয়া সম্ভব হবে না।
ফেডারেল তথ্য অনুযায়ী, গত এক দশকে সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশি গ্রীণকার্ড নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন ২০১৬ সালে। সে সংখ্যা ছিল ১৮৭২৩ এবং একই বছরে সিটিজেন হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছেন ৯৯৪৯ জন। ২০১৩ সালে শপথ নেন ৯৫৭১ জন। নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন সবচেয়ে বেশি ২০১৮ সালে-৪৫৩৫১ জন। গত দশকে সীমান্ত রক্ষীদের দৃষ্টির আড়ালে মেক্সিকো হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের সময় ধরা পড়েন সবচেয়ে বেশি গত বছর-৯৩৪৩ জন। ২০১৫ সালে সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশিকে গুরুতর অপরাধে লিপ্ত থাকার দায়ে অথবা শাস্তি ভোগের পর যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কার করা হয়। সে সংখ্যা-২১৩। তবে উল্লেখযোগ্য একটা বিষয় হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে বেআইনি পথে সীমান্ত অতিক্রমের সময়ে ধরা পড়ার পর বিশেষ ফ্লাইটে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেওয়াদের তথ্য নেই।
প্রবাসীদের মধ্যে নানাবিধ কারণে অনৈক্যের একটি তথ্য দৃশ্যমান হয়েছে নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিলে এক আসনে ৬ বাংলাদেশির প্রার্থীতা ঘোষণার মধ্য দিয়ে। সিটিতে বর্তমানে সব চেয়ে বেশি বাংলাদেশির বসতি গড়ে উঠেছে জ্যামাইকা-কুইন্স ভিলেজে। সে এলাকার একটি আসনে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ান ভোটারের হার ১১%। বাংলাদেশি আমেরিকান রেজিস্টার্ড ভোটার হচ্ছেন ৫%। অপরদিকে শ্বেতাঙ্গ ভোটারের হার ৫০% এর বেশি। এই নির্বাচনী এলাকায় ১৩ অক্টোবর পর্যন্ত প্রার্থী হিসেবে ৮ জনের মধ্যে চারজনই বাংলাদেশি। তারা হলেন ড.দীলিপ নাথ, এটর্নী সোমা সাঈদ, মৌমিতা আহমেদ এবং মো. সাবুল উদ্দিন। আরও দু’জনের নাম ভোটের ময়দানে শোনা যাচ্ছে। তারা হলেন, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সেক্রেটারি এবং ডেমক্র্যাটিক পার্টির তৃণমূলের সংগঠক ফখরুল আলম এবং স্থানীয় কমিউনিটি বোর্ড মেম্বার ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Developed by : JM IT SOLUTION