1. Don.35gp@gmail.com : Editor Washington : Editor Washington
  2. masudsangbad@gmail.com : Dewan Arshad Ali Bejoy : Dewan Arshad Ali Bejoy
  3. jmitsolution24@gmail.com : Nargis Parvin : Nargis Parvin
  4. rafiqulmamun@yahoo.com : Rafiqul Mamun : Rafiqul Mamun
  5. rajoirnews@gmail.com : Subir Kashmir Pereira : Subir Kashmir Pereira
  6. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
  7. rafiqulislamakash@yahoo.it : Rafiqul Islam : Rafiqul Islam
  8. sheikhjuned1982@gmail.com : Sheikh Juned : Sheikh Juned
শেখ হাসিনা ক্রমশ একা হচ্ছেন ! - Washington Sangbad || washington shangbad || Online News portal
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪৮ পূর্বাহ্ন

শেখ হাসিনা ক্রমশ একা হচ্ছেন !

  • প্রকাশিত : বুধবার, ১৭ মার্চ, ২০২১
  • ৮০ জন সংবাদটি পড়েছেন।

হাকিকুল ইসলাম খোকন সিনিয়র প্রতিনিধি : আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টানা ১২ বছর ধরে সরকার পরিচালনা করছেন। এই সরকার পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ কুসুমাস্তীর্ণ ছিলনা। নানারকম চড়াই-উৎরাই এবং প্রতিকূল পরিস্থিতি পেরিয়ে ২০০৯ সালে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর সেই সময় যারা তার পাশে ছিলেন, যারা তাকে সহযোগিতা করেছিল, যারা তার বিশ্বস্ত ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত ছিল তারা একে একে চলে যাচ্ছেন। কিছুদিন আগে মারা গেলেন এইচ.টি.ইমাম। এর সাথে শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত মানুষের নিঃসঙ্গতা আরও বাড়ল।

জিল্লুর রহমান: আওয়ামী লীগ সভাপতির সবচেয়ে বিশ্বস্ত এবং কাছের মানুষ ছিলেন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান। জিল্লুর রহমান ২০০৭ সালে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। শেখ হাসিনা গ্রেফতার হওয়ার মুহূর্তে তাকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব দিয়ে যান। ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে তিনি দলকে কেবল অখণ্ডই রাখেননি , দলের ঐক্য ধরে রাখা এবং দলের সভাপতির মুক্তির জন্য তিনি এক অনবদ্য ভূমিকা পালন করেছিলেন। শেখ হাসিনার একজন বিশ্বস্ত রাজনৈতিক সহযোদ্ধা হিসেবেও তার পরিচয়টা বেশি। তিনি রাষ্ট্রপতি থাকা অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম: ১/১১ এর সময় শেখ হাসিনার আরেকজন সহ যাত্রীর নাম সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। ১/১১ এর সময় সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। আর সেই সময় তিনি শেখ হাসিনার নেতৃত্ব অখণ্ড রাখার পক্ষে একটা সাহসী ভূমিকা রেখেছিলেন। একজন নির্ভীক, সৎ মানুষ হিসেবে সৈয়দ আশরাফের প্রশংসনীয় ভূমিকা ছিল এবং তিনি ছিলেন শেখ হাসিনার একজন বিশ্বস্ত রাজনৈতিক সহযোদ্ধা । তার মৃত্যু শেখ হাসিনার জন্য এক ধরনের শূন্যতা ।

অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন: শেখ হাসিনার একজন পূর্ণ বিশ্বস্ত সহযাত্রী ছিলেন অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন। ১/১১ এর সময় শেখ হাসিনা যখন গ্রেপ্তার হয়েছিলেন তখন তিনি আওয়ামী লীগের যে প্রথম নেতাকে ফোনটি করেছিল সেটি ছিল সাহারা খাতুন। সাহারা খাতুন তার রাজনৈতিক জীবনে শেখ হাসিনার বিশ্বাস কখনও ভঙ্গ করেননি এবং শেখ হাসিনার একজন বিশ্বস্ত কর্মী হিসেবেই তিনি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতেন। সাহারা খাতুনের মৃত্যু শেখ হাসিনাকে একা করে দেয়।

শেখ আব্দুল্লাহ: শেখ আব্দুল্লাহ শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি ছিলেন না। শেখ হাসিনার নির্বাচনী এলাকা দেখাশোনার দায়িত্ব ছিল তার ওপর। আর এই দায়িত্ব নিষ্ঠা ও সততার সাথে পালন করার জন্যই তাকে ২০১৯ এর মন্ত্রীসভায় তাকে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এই প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা অবস্থায় করোনায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। গোপালগঞ্জের রাজনীতির অনেক কিছুই দেখভাল করতেন শেখ আব্দুল্লাহ। তিনি শেখ হাসিনার একজন বিশ্বস্ত প্রতিনিধি হিসেবে সেখানে কাজ করতেন। এটিও শেখ হাসিনার জন্য এক বড় শূন্যতা।

এইচ.টি.ইমাম: আর এই শূন্যতার খাতার সর্বশেষ নামটি হল এইচ.টি.ইমাম। এইচ.টি.ইমাম ছিলেন শেখ হাসিনার এক নির্ভরতার নাম। অনেক বিষয়ই শেখ হাসিনা তার ওপর নির্ভর করতেন। বিশেষ করে জনপ্রশাসন, নির্বাচন, আইন,কানুন ইত্যাদি বিষয়ে শেখ হাসিনাকে সার্বক্ষণিক পরামর্শ দিতেন এইচ.টি.ইমাম। তার মৃত্যু শেখ হাসিনাকে আরও একা করে দিল।

এভাবে আস্তে আস্তে নির্ভরতার মানুষগুলো চলে যাচ্ছে। শেখ হাসিনা হচ্ছেন ক্রমশ একা। ত্রখন অনেকে মনে করেন অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান ছাত্রজীবন থেকেই সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু’র আদর্শের একান্ত অনুসারী। যা তিনি খোলাখুলিভাবে বলতে ভালবাসেন। তবে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি নিযুক্ত হওয়ার পর থেকেই নিজের আদর্শে অটল অবিচল থেকেও বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমে দলীয়করণকে বিন্দুমাত্র প্রশ্রয় দেওয়ার তেমন কোন অভিযোগ কোথাও পাওয়া যায়নি। কর্মজীবনে নিজ আদর্শের অনুসারীদের কোন অন্যায় আবদারকে প্রশ্রয় দেননি বলে ব্যাপক জনশ্রুতি আছে।বাংলাদেশের শিক্ষার সামগ্রিক উন্নয়ন,সম্প্রসারণ ও আধুনিক বিশ্বের সাথে সঙ্গতি রেখে যথাযথ গবেষনাভিত্তিক কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য অধ্যাপক ড.মিজানুর রহমানকে দেশ ও জাতির ব্যাপক কল্যানের লক্ষ্যে”শিক্ষা ত্রবং যেকোন উপদেষ্টা”হিসাবে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারবে বলে দেশ ও প্রবাসের অনেক বিজ্ঞজনকে বলতে দেখা গেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Developed by : JM IT SOLUTION